Take a fresh look at your lifestyle.

কবিতায় তুমি আমি

52

 

কী থাকে একটা কবিতায়!
ওভাবে বলো না,
বলো কী নেই কবিতায়!
কবিতায় তুমি আছো, আমি আছি,
গত সপ্তাহের মন খারাপেরা আছে।
আছে চন্দ্রাবতীর জোছনা,
ঘোলা জলের মেঘ।
চড়ুইদের খুনসুটি,
আর!
আর আমাদের গভীর রাতের ব্যথাতুর নিস্তব্ধতা।

কবিতার থাকে গতকাল,
যা আমাদের সমান্তরালে হেঁটে হেঁটে ভবিষ্যত হয়ে যায়।
কবিতার মগজে কিলবিল করে,
কষ্ট পোকাদের বৈশাখ জৈষ্ঠ্য মাস।
আকাশের নীলে উড়ে যায় প্রিয়ার আঁচল,
প্রেমিকের পকেটে দোল খায় লাল টুকটুকে গোলাপ।

কবিতায় সব থাকে,
থাকে দেশ প্রেম যা গড়িয়ে পড়ে স্বাধীনতার ঘোষণা পত্রে।
একটি ফুলকে বাঁচাতে গিয়ে,
যুদ্ধে পাড়ি দেয় মায়ের দামাল ছেলেরা।
কবিতা বিদ্রোহ করে অসাম্যের বিরুদ্ধে,
রুখে দেয় মিথ্যের মহাকাল।
ইতিহাসের পাতায় লিখে রাখে,
শত জনমের শোষণ, পীড়ন আর প্রহসনের রাজনীতি।

অর্থনৈতিক ও ধর্মীয় বৈষম্যের জঠরে আঘাত করে করে,
সাম্যবাদের স্লোগানে উৎপাটিত করে স্বৈরতন্রের বোনমেরো।
কবিতা কথা বলে,
কবিতা হেসে উঠে খিলখিল।
কবিতা বিপ্লব ঘটায়,
নেতৃত্ব দেয় ইতিহাস বদলের চলমান-চিত্রে।
প্রেম কবিতার মূলমন্ত্র,
কবিতাও কাঁদে, অভিমান করে।

কবিতার মেরুদণ্ডে সাহসী সত্য থাকে,
বিশ্বাসের ভাইরাসের সংক্রমণে কবিতা মাথা উঁচু করে দাঁড়ায়;
কবিতা মাথা উঁচু করে দাঁড়ায় পৃথিবীর মানচিত্রে।
কবিতায় জন্ম, মৃত্যু, সৃষ্টি ও ক্ষয় থাকে,
থাকে সুনিপুণ শুদ্ধতার বিনির্মাণ।
আমি আমরা সবাই থাকি কবিতায়,
থাকে আমাদের চিরায়ত ইতিহাসের ইতিবৃত্ত সকলের।

 

নাজনীন নাহার- কবি ও সাহিত্যিক।

Leave A Reply

Your email address will not be published.