Take a fresh look at your lifestyle.

বোধের পাহাড়

286

 

হে বোধের পাহাড়, উঠবে জেগে কবে ?
কালের মহাতরী মহাকালের পানে
নিরন্তর হেসে নীরবে ভেসে যায়-
কতোকাল কুম্ভকর্ণ হয়ে রবে ?
এ কেমন তোমার নিঠুর কারুকাজ ! হৃদয় অভিধানে,
আমার যে নিন্দা জানাবার- বিশেষ শব্দ কোষ নাই !

বাহিরেতে তোমার বিগলিত উষ্ণ খোলা প্রস্রবণ,
অন্তরে কঠিন প্রস্তর শিলার পুরো আচ্ছাদন !
ধ্বংস-যজ্ঞ, বিত্ত-বৈভব, ক্ষমতার নিনাদ, করে যে আরোহণ
প্রলয়ঙ্করী উৎসাহী দেমাগ করো উৎক্ষেপণ !

অন্তরীক্ষেতে হাসে আলো-আঁধার বর্ণিল তমসা
স্বাধীনতা বসন লুট করে উড়াও যে ঝাণ্ডা সহসা !
হে বোধের পাহাড়, কতকাল চলবে এ ঘাত-প্রতিঘাত,
ক্ষমতার দাপট, অস্ত্রের খেল, এই মরণ ফাঁদ ?

বলো, থামবে কবে ? লক্ষ জনতার
নিদারুণ বিরূপ মনো আর্তনাদ !
দুর্বলের ‘পর সবলের খড়গ হাতে নির্যাতন
রক্তে রক্তে এ দমন নিপীড়ন, দুঃস্বপ্ন বিবাদ ?

রকেট হতে ঝরা গ্রেনেডের নগ্ন অঝোর বৃষ্টিতে !
আর কতো পুষ্প লুকাবে মৃত্যুর নদীর অন্তরে ?
শোকে মুহ্যমান পৃথিবী বুকে নিয়ে অসহায় মানুষ ;
মরণজয়ী হাসি, শুভ্র প্রভাতের যে প্রতীক্ষা করে !
গুনে যায় প্রহর দাঁড়িয়ে স্বজনের ছাই রঙা স্বপ্ন আঁকা লাশ-বহরে।
দুহাত তুলে করে প্রার্থণা তাকিয়ে নীলিম অম্বরে।

হে বোধের পাহাড়, আড়মোড়া ভেঙ্গে ওঠো এবার জেগে
গ্ৰেনেড নয় আর, বসন্ত বাতাসে- ছুঁড়ো শান্তি বীণ !
নয় যে ধ্বংস, মৃত্যুর যজ্ঞ ; আগ্রাসী হৃদয়, বহ্নি উপহার !
স্বাধীনতা বসনে আবৃত সে দেহ ; ভেসে যাক পবনে- হরষে সীমাহীন।

বিবেকের রঙীন ঝালরে দাও এঁকে সাত রঙের ধনু
ধ্বংস স্তুপের অগ্রভাগে দাও টেনে পর্দা ; যায় না যেন আর দেখা,
অকুণ্ঠ চিত্তে মাটির অধিকার ফিরিয়ে দাও তারে
নির্মল পুষ্প সমতুল শিশুর অধরেতে ফুটুক হাসির বলি রেখা।

 

 

কাজী আনারকলি – কবি, সাহিত্যিক ও গবেষক।

Leave A Reply

Your email address will not be published.