Take a fresh look at your lifestyle.

১৬ ই ডিসেম্বর বিজয় দিবস

410

দীর্ঘ চব্বিশ বছর পাক হানাদার বাহিনী বাংলার
মজ্জা চুষে খেয়েছে!
১৯৪৮ সালে ওরা বাঙালির মুখের ভাষা কেড়ে নেওয়ার পায়তারা ক’রে-
প্রতি বাদ হলো!
এক তরুণ যুবক রুখে দাঁড়াল-
শুরু হলো পাকিস্তানি দের অংক কষা!
পুড়ে দিল কারাগারে, কারাগার’ই ছিল যুবকের জীবনের খেলা ঘর!

যুবক রইল কারাগারে-
১৯৫২ সালে ২১শে ফেব্রুয়ারি, রাজপথে বেড়িয়ে এল ছাত্র জনতা-
ওরা আমার বাংলা মায়ের সন্তানের উপর নির্বিচারে গুলি চালায়-
শহীদ হলো রফিক, সফিক,জব্বার, বরকত আরো অগণিত আহত!

১৯৬৬ সালে বাংলার মেহনতী মানুষের পূর্ণ দাবি আদায়ে যুবক ৬ দফা দাবি পেশ করে-
এ-ই ৬ দফা’ই পরবর্তীতে স্বাধীন চেতনার ডাকে পরিনত হয়।

বাংলার দামালে’রা ক্ষান্ত হলনা,
শুরু হলো ভিন্ন পথে দমন কার্যক্রম!
প্রতি বাদী যুবকের শুরু হলো কারাবাস,
আগরতলা ষড়যন্ত্রে তাকে ফাঁসানো হলো-
ব্যার্থ হলো জনতার চাপের মুখে!
একদিন সে বঙ্গবন্ধু নামে ভুসী’ত হলো!

১৯৭১ সালে ৭ই মার্চ-
রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দিলেন-
যার যা আছে তাই নিয়ে রুখে দাঁড়াতে নির্দেশ দেন।

১৯৭১ সালে ২৫শে মার্চ পাক হায়েনা’রা-
মধ্য রাতে নিরীহ বাঙালির উপর অত্যাধুনিক গোলা বারুদ নিয়ে বন্য শুয়োরের মতো ঝাপিয়ে পড়ল-
লাখো বাঙালির রক্তে রাজপথ রঞ্জিত হলো!

বঙ্গবন্ধু’কে ওরা ২৬শে মার্চ –
পশ্চিম পাকিস্তানে নিয়ে গেলো,
শুরু হলো বাঙালির উপর অমানুষিক নির্যাতন!
দীর্ঘ নয় মাস, বাংলার বিচ্ছু বাহিনী বুকের তাজা
রক্ত দিয়ে ১৬ই ডিসেম্বর শত্রু মুক্ত করল।

এক বুক আকাশে উদিত হলো –
লাল সবুজের পতাকা!
বঙ্গবন্ধুর ২৩ বছরের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল আমরা পেলাম ১৬ই ডিসেম্বর বিজয়!
জয় বঙ্গবন্ধু জয় বাংলা ।

শেখ রশীদ-
কবি ও সাহিত্যিক।

Leave A Reply

Your email address will not be published.