Take a fresh look at your lifestyle.

মা এবং সুশিক্ষা

35

দিল আফরোজ রিমা-

কবি, সাহিত্যিক ও লেখক। 

একজন মা সন্তানের খুব প্রিয় খুব কাছের। তিনি সন্তানের জন্য শ্রেষ্ট মানুষ শ্রেষ্ট শিক্ষক। সন্তান একান্তভাবে মাকেই পেয়ে থাকে এবং তাকেই পথ পদর্শক মনে করে। মায়ের ৭৫% রক্তে গড়া এ সন্তানেরা তিল তিল করে মায়ের কোলেই বড় হয়। তারা একদিন সত্যিকারের মানুষ হয়ে উঠে।

সন্তানের মন মানসিকতা গঠনে মায়ের আদর্শিক চিন্তা-চেতনা একশত ভাগ প্রভাব বিস্তার করে। তবে যে সকল মায়েরা উদাসীন নিজেদেরই কোন আদর্শ নেই, আল্লাহ রাসূলের পথে চলে না, নামাজ পড়ে না তাদের সন্তানরা অসৎ মিথ্যাবাদী সহ খারাপ স্বভাবের হয়ে যাওয়া স্বাভাবিক।

সন্তানদের চরিত্রবান করে গড়ে তোলার জন্য প্রয়োজন একজন চরিত্রবান আদর্শবাদী একজন উন্নত মন মানসিকতা সম্পন্ন সত্যিকারের মা, মা, এবং মা। তারপর বাবা।

শিক্ষা ব্যতীত কোন সন্তান আদর্শ মানুষ হয়ে গড়ে উঠতে পারে না। জীবনে একজন আদর্শ মানুষ হয়ে বাঁচতে পারে না। বাবা মায়ের সম্পত্তি হেফাজত করতে পারে না। এমনকি তাদের মৃত্যুতে সঠিকভাবে জানাজাও করতে পারে না। সমাজের জন্যও কোন কল্যানকর কাজ তাদের দ্বারা আশা করা যায় না।

আদর্শ মা না হতে পারলে সন্তানকেও ঠিক ভাবে মানুষ করা যায় না। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন,-কোন বাবা স্বীয় সন্তানকে যত কিছুই দিয়েছে,এর মধ্যে কোন উপহার উপঢৌকনই উত্তম চরিত্র ও ব্যবহার শেখানোর চেয়ে উতকৃষ্ট হতে পারে না।-তিরমিযী

আন্য এক হাদীসে রয়েছে, হযরত আনাস বিন মালেক (রাঃ) বর্ননা করেন যে, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, তোমরা নিজ সন্তানের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হও এবং তাদেরকে সুশিক্ষার মাধ্যমে সচ্চরিত্রে চরিত্রবান কর। –ইবনে মাজাহ।

দিল আফরোজ রিমা

Leave A Reply

Your email address will not be published.