Take a fresh look at your lifestyle.

সৎ কাজ

29

 

আমাদের জন্য কল্যানকর যে সমস্ত কাজ , সেগুলোই সৎ কাজ। যে কাজ অকল্যানকর তা অসৎ কাজ। আল্লাহ সৎ কাজ পছন্দ করেন। কারন সৎ কাজের মধ্যেই মানুষের কল্যান রয়েছে।

চুরি করা অসৎ কাজ। অন্যদিকে চুরি না করে আমানত রক্ষা করা বা প্রতিবেশীকে তার সম্পদ চুরি যাওয়ার আশঙ্কা থেকে মুক্ত রাখা সৎ কাজ।

আল্লাহ রাব্বুল আলামিন সেই কাজে খুশী যে কাজে তার বান্দার কল্যান সাধিত হয়।

নবী রাসুলগণের দায়িত্ব ছিল মানুষের কাছে আল্লাহর দ্বীন পৌছে দেওয়া । এই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তাদের ভাল কাজের আদেশ এবং মন্দ কাজ থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিতে হয়েছে। হযরত আদম (আঃ) থেকে শুরু করে সর্বশেষ এবং সর্বশ্রেষ্ট নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) পর্যন্ত লক্ষাধিক নবী ও রসুল এ কাজ করেছেন।রাসুলুল্লাহ (সা:) সুদীর্ঘ তেইশ বছর কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে একটি পথভ্রষ্ট জাতিকে তদানীন্তন বিশ্বে সবচেয়ে উন্নত জাতিতে পরিনত করেছিলেন।

পবিত্র কোরানে আল্লাহ বলেন, আর তোমাদের মধ্যে এমন একদল থাকবে যারা সৎ কাজের নির্দেশ দিবে এবং অসৎ কাজে নিষেধ করবে। তারাই সফলকাম। সুরা আল ইমরান-১০৪

সৎ কাজের আদেশ নিজ পরিবার থেকে শুরু করতে হবে।কোরান মজীদে ইরসাদ হয়েছে, হে মুমিন গণ তোমরা নিজদিগকে এবং তোমাদের পরিবার পরিজনকে রক্ষা কর অগ্নি থেকে। সুরা তাহরীম ০৬

আসুন আমরা অসৎ কাজ থেকে বিরত থাকি এবং নিজেদের পরিবারকে সৎ কাজের নির্দেশ দেই। চেনা জানা সকল মানুষকে সৎ কাজে উৎসাহিত করি। আমিন।

 

দিল আফরোজ রিমা- কবি, লেখক ও সাহিত্যিক।

Leave A Reply

Your email address will not be published.