Take a fresh look at your lifestyle.

ক্যান্সার পর্ব- আঠারো

307

গত পর্ব শেষ করেছিলাম ব্লাড ক্যান্সার/ লিউকেমিয়ার বাকি অংশ নিয়ে কিছু বলার চেষ্টা করে। আজ শুরু করব ব্লাড ক্যান্সারের উপসর্গগুলি (Symptoms) নিয়ে আলোচনা।
আগেই জেনেছিলাম যে, বিভিন্ন ক্যান্সারের উপসর্গগুলি কিছু কিছু ক্ষেত্রে অভিন্ন হলেও আবার অনেকটা ভিন্ন রকমের ও হয়ে থাকে। এখন তাহলে জানা যাক এই রোগের পূর্ব লক্ষণগুলি কি কি হতে পারেঃ
উপসর্গগুলি (Symptoms) :
একজন মানুষের শরীরে রক্ত, যা শরীরের স্বাভাবিক ওজনের প্রায় 8 শতাংশ অবদান রাখে, কীভাবে তা শরীরের কার্যকারিতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। রক্ত ​​যখন শরীরে ভাস্কুলার সিস্টেমে সঞ্চালিত হয়, এটি সমস্ত অঙ্গকে অক্সিজেন, পুষ্টি, হরমোন এবং অ্যান্টিবডি সরবরাহ করে। রক্ত প্লাজমার প্রায় সমান মিশ্রণ (তরল যা কোষ, বর্জ্য এবং পুষ্টিগুলি অন্যান্য জিনিসের মধ্যে পরিবহন করে) এবং রক্ত ​​কোষ (লাল রক্তকণিকা, সাদা রক্তকণিকা এবং প্লেটলেট) দিয়ে তৈরি হয়।
রক্তে ক্যান্সার দেখা দিলে এটি সাধারণত সাদা রক্তকণিকার অস্বাভাবিক এবং অতিরিক্ত প্রজননের ফলাফল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি বছর নির্ধারিত সমস্ত ক্যান্সারের মধ্যে রক্ত ​​ক্যান্সারগুলির পরিমাণ প্রায় 10 শতাংশ। শৈশবকালে লিউকেমিয়া শিশুদের সমস্ত ক্যান্সারের 25 শতাংশ থাকে।
হেমাটোলজি বিভাগের ইয়েল মেডিসিন হেমাটোলজিস্ট এমডি, স্কট ফ্রেডেরিক হান্টিংটন বলেছেন, “কিছু রক্ত ​​ক্যান্সারের ফলে গুরুতর ক্লান্তি, ওজন হ্রাস, রাতের ঘাম বা লিম্ফ নোড ফোলাজাতীয় লক্ষণ দেখা দিতে পারে। অনেক সময় রক্ত ​​ক্যান্সারের লক্ষণগুলি দেখা যায় না কিন্তু ধীরে ধীরে বছরের পর বছর ধরে অগ্রসর হতে পারে”।
জানামতে কমন উপসর্গ (Symptoms ) সম্পর্কে আরো কিছু ধারণাঃ
কাশি ও বুকে ব্যাথা, ঠান্ডা, সর্দি ও জ্বর, ঘন ঘন ইনফেকশন (সংক্রামক), ত্বকে চুলকানি, বমি বমি ভাব ও ক্ষুধা হ্রাস, রাতে ঘেমে যাওয়া, অবিরাম দুর্বলতা এবং ক্লান্তি, শ্বাস কষ্ট , ঘাড়ে, বগলে ফোলা, ব্যথাহীন চাকা দেখা যাওয়া, মলদ্বারে রক্তক্ষরণ, মাথা ঘোরা, হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়া, হার্ট বিট এর অস্বাভাবিক অবস্থা, ফ্যাকাশে চামড়া, বুকে ব্যাথা, কোন কারণ ছাড়াই ঘন ঘন ঘা, সহজে রক্তপাত, যেমন কাটা থেকে, মাড়ি থেকে বা নাক থেকে. স্বাভাবিকের চেয়ে ভারি মাসিক হওয়া, কাটা থেকে দীর্ঘায়িত রক্তপাত ঘটা, পেট ফাঁপা ফাঁপা বোধ করা, বদহজম বা খাবার গিলতে কষ্ট হওয়া, বাহু, পা এবং জয়েন্টে ব্যথা, কখনো ঠান্ডা বা কখনো ঘেমে যাওয়া, সারা শরীরে ব্যাথা অনুভূত হওয়া। এধরণের লক্ষণগুলির যে কোন একটি বা একের অধিক দেখা দিলে, সময় নষ্ট না করে চিকিতসকের স্মরণাপন্ন হওয়া অবশ্যই প্রয়োজনীয়। আজকে এ পর্যন্ত, আগামী পর্ব আসছে এই রোগের বিরুদ্ধে আপনার, আমার সচেতনতা ও চিকিৎসার কথা নিয়ে। ততক্ষণ ভালো থাকুন, এই পর্বের বিষয়টি দেখুন, পড়ুন আর অন্যকেও পড়তে শেয়ার করুন। সৃষ্টিকর্তার অনুশাসন মেনে চলুন।

রওশন চৌধুরী – সহ সম্পাদিকা চেতনা বিডি ডটকম।

Leave A Reply

Your email address will not be published.