Take a fresh look at your lifestyle.

ক্যান্সার পর্ব-৩৭

270
কোলন ক্যান্সারঃ
ক্যান্সার নিয়ে লিখা শেষ করতে গিয়ে মনে হলো আরেকটা খুব মারাত্মক ক্যান্সার নিয়ে লিখা হয় নি। তাই আজ আরেকটি ক্যান্সার নিয়ে জানার চেষ্টা করব। তা হলো Colon ক্যান্সার বা অন্ত্র ক্যান্সার।
কোলন ক্যান্সার এক প্রকার ক্যান্সার যা বৃহৎ অন্ত্র (কোলন) এ শুরু হয়। কোলন হজম সংক্রমণের চূড়ান্ত অংশ। এই ক্যান্সার সাধারণত বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্কদেরকে প্রভাবিত করে যদিও এটি যে কোন বয়সেই ঘটতে পারে। এটি সাধারণত Polyps নামক কোষগুলির ছোট, Noncancerous (benign) clumps of cells called polyps that form on the inside of the colon. Over time some of these polyps can become colon cancers. ননক্যানসাস (সৌম্য) ক্লাম্প হিসাবে শুরু হয় যা কোলনের অভ্যন্তরে গঠন করে। সময়ের সাথে সাথে এই পলিপগুলির কয়েকটি কোলন ক্যান্সারে পরিণত হতে পারে। Colon cancer is sometimes called colorectal cancer, which is a term that combines colon cancer and rectal cancer, which begins in the rectum. অর্থাৎ কোলন ক্যান্সারকে কখনও কখনও কোলোরেক্টাল ক্যান্সারও বলা হয়, যা কোলন ক্যান্সার এবং মলদ্বার ক্যান্সারের সংমিশ্রণকারী একটি শব্দ যা মলদ্বারে শুরু হয়।
লক্ষণ (Symptoms) পলিপগুলি ছোট হতে পারে এবং এর লক্ষণগুলির কিছু কম উত্পাদন করতে পারে। এই কারণে, ডাক্তাররা ক্যান্সারে পরিণত হওয়ার আগে পলিপগুলি সনাক্ত এবং অপসারণ করে কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধে নিয়মিত স্ক্রিনিং টেস্টের পরামর্শ দেন।
কোলন ক্যান্সারের লক্ষণ ও লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে (Signs and symptoms of colon cancer include)ঃ
১। ডায়রিয়া বা কোষ্ঠকাঠিন্য বা আপনার স্টলের ধারাবাহিকতায়
পরিবর্তন সহ অন্ত্র অভ্যাসে অবিচ্ছিন্ন পরিবর্তন।
২। মলদ্বারে রক্তপাত বা রক্ত ক্রমাগত পেটের অস্বস্তি, যেমন বাধা, গ্যাস
বা ব্যথা এমন একটি অনুভূতি যা অন্ত্রটি পুরোপুরি খালি হয় না।
৩. দুর্বলতা বা ক্লান্তি (৪) অব্যক্ত ওজন হ্রাস
কোলন ক্যান্সারে আক্রান্ত অনেকে রোগের প্রাথমিক পর্যায়ে কোনও লক্ষণই অনুভব করেন না। যখন লক্ষণগুলি উপস্থিত হয়, তখন ক্যান্সারের আকার এবং বৃহত অন্ত্রের অবস্থানের উপর নির্ভর করে এগুলি সম্ভবত পৃথক হবে।
কখন ডাক্তারের সাথে দেখা করতে হবেঃ যদি কেউ উল্লেখিত এমন কোনও লক্ষণ লক্ষ্য করে থাকেন তবে চিকিৎসকের সাথে খুব তাড়াতাড়ি অ্যাপয়েন্টমেন্ট করুন। কোলন ক্যান্সার স্ক্রিনিং কখন শুরু করবেন সে সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন।
কারণসমূহঃ (Causes)ঃ বেশিরভাগ কোলন ক্যান্সারের কারণ কী তা ডাক্তাররা নিশ্চিত নন । সাধারণভাবে, কোলনের ক্যান্সার শুরু হয় যখন কোলনে স্বাস্থ্যকর কোষগুলি তাদের ডিএনএতে পরিবর্তন (মিউটেশন) বিকাশ করে। একটি কোষের ডিএনএতে নির্দেশাবলীর একটি সেট থাকে যা কোনও কোষকে কী করতে হবে তা বলে দেয়।
স্বাস্থ্যকর কোষগুলি আপনার শরীরকে স্বাভাবিকভাবে সচল রাখতে সুশৃঙ্খলভাবে ক্রমবর্ধমান এবং বিভক্ত হয়। কিন্তু যখন কোনও কোষের ডিএনএ ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং ক্যান্সার হয়ে যায়, তখন কোষগুলি বিভাজন করতে থাকে – এমনকি যখন নতুন কোষগুলির প্রয়োজন হয় না। কোষগুলি জমে যাওয়ার সাথে সাথে তারা একটি টিউমার তৈরি করে। সময়ের সাথে সাথে ক্যান্সার কোষগুলি কাছাকাছি অবস্থিত সাধারণ টিস্যুকে আক্রমণ এবং ধ্বংস করতে পারে। এবং ক্যান্সারযুক্ত কোষগুলি শরীরের অন্যান্য অংশে ভ্রমণ করতে পারে সেখানে জমা (Metastasis) তৈরি করে থাকে।
আজ এ পর্যন্ত তাহলে সবাই ভালো থাকুন। এই পর্বটি পড়ুন এবং অন্যকে শেয়ার করুন। আগামীতে এর বাকি অংশ নিয়ে আসার আশা নিয়ে, আল্লাহ্‌ হাফেজ।
(চলবে)
রওশন চৌধুরী, সহ সম্পাদিকা, চেতনায় বিডি ডটকম।

Leave A Reply

Your email address will not be published.