Take a fresh look at your lifestyle.

ক্যান্সার পর্ব ৩৮।

271
কোলন ক্যান্সারঃ
গত পর্ব শেষ হয়েছিলো কোলন ক্যান্সারের কারণ কি তা দিয়ে। আজ এর ঝুকির কারণ এবং রোগটি নির্ণয়ের কিছু উপায় নিয়ে আলোচনা করা যাবে।
ঝুঁকির কারণ (Risk factors)ঃকোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে এমন কারণগুলির মধ্যে রয়েছেঃ
বয়স বৃদ্ধিঃ কোলন ক্যান্সার যে কোনও বয়সে নির্ণয় করা যেতে পারে, তবে এ ক্যান্সারে আক্রান্ত বেশিরভাগ লোকের বয়স 50 এর চেয়ে বেশি হয়ে থাকে।
আফ্রিকান-আমেরিকান রেসঃ অন্যান্য জাতিদের তুলনায় আফ্রিকান-আমেরিকানদের কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বেশি থাকে।
A personal history of colorectal cancer or polypsঃ কারো যদি ইতিমধ্যে কোলন ক্যান্সার বা নন-ক্যানসারাস কোলন পলিপস ধরা পড়ে থাকে তবে ভবিষ্যতে সেই ব্যক্তির কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বেশি থাকে।
অন্ত্রের প্রদাহজনক অবস্থা(Inflammatory intestinal conditions)ঃকোলনের দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহজনিত রোগ যেমন আলসারেটিভ কোলাইটিস এবং Crohn’s disease আপনার কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে।
উত্তরাধিকারী লক্ষণগুলি যা কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায় (Inherited syndromes that increase colon cancer risk)ঃ আপনার পরিবারের বিভিন্ন প্রজন্মের মধ্য দিয়ে গেছে এমন কিছু জিন পরিবর্তন আপনার কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকিটিকে উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়াতে পারে। কোলন ক্যান্সারের একটি অল্প শতাংশই উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত জিনগুলির সাথে যুক্ত। এই সিন্ড্রোমগুলি Familial Adenomatous Polyposis (FAP) and Lynch syndrome যা hereditary Nonpolyposis Colorectal Cancer (HNPCC). নামেও পরিচিত।
Family history of colon cancer: কারো যদি কোনও রক্তের আত্মীয় যিনি এই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন তবে তার কোলন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। যদি পরিবারের একাধিক সদস্যের কোলন ক্যান্সার বা মলদ্বার ক্যান্সার থাকে তবে এই পরিবারের বাকিদের ঝুঁকি আরও বেশি।
Low-fiber, high-fat dietঃ কোলন ক্যান্সার এবং মলদ্বার ক্যান্সার একটি সাধারণ পশ্চিমা ডায়েটের সাথে সম্পর্কিত হতে পারে যা ফাইবার কম এবং চর্বি এবং ক্যালোরি বেশি। এই অঞ্চলে গবেষণার মিশ্র ফলাফল রয়েছে। কিছু গবেষণায় লোড মাংস এবং প্রক্রিয়াজাত মাংসের উচ্চ ডায়েট খাওয়া লোকেদের মধ্যে কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়েছে।
A sedentary lifestyleঃ নিষ্ক্রিয় অলস বা পরিশ্রম বিমুখী ব্যক্তিরা কোলন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। নিয়মিত শারীরিক পরিশ্রম কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে।
Diabetesঃ ডায়াবেটিস বা ইনস্যুলিন প্রতিরোধের লোকেদের কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বেশি থাকে।
Obesity (স্থূলতা)ঃ সাধারণ ওজন হিসাবে বিবেচিত মানুষের তুলনায় স্থূল লোকেরা কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি এবং কোলন ক্যান্সারে মারা যাওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে।
Smokingঃ যারা ধুমপান করেন তাদের কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি রয়েছে।
Alcoholঃ অ্যালকোহল অতিরিক্ত ব্যবহার কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে।
Radiation therapy for cancerঃ পূর্বের ক্যান্সারের চিকিত্সার জন্য পেটে নির্দেশিত রেডিয়েশন থেরাপি কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়।
কোলন ক্যান্সার নির্ণয় করার উপায় (Diagnosing colon cancer)ঃ
১। Colonoscopy কোলনস্কোপিঃ যদি কারো পূর্বে উল্লেখিত লক্ষণ ও লক্ষণগুলি দেখা দেয় তাহলে দেরি না করে অবশ্যই একজন বিজ্ঞ চিকিৎসকের সুপারিশ গ্রহণ করেন এবং চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে টেস্টগুলো করিয়ে নিন। আর এ ক্ষেত্রে একজন Gastrologist এর স্মরণাপন্ন হওয়াই সঠিক সিদ্ধান্ত হবে। Gastrologist সিদ্ধান্ত নেবেন Colonoscopy করতে। রোগীর colon এর অভ্যন্তর (Colonoscopy) পরীক্ষা করার জন্য সম্পূর্ণ colon এবং মলদ্বার দেখতে ভিডিও ক্যামেরা এবং মনিটরের সাথে সংযুক্ত একটি দীর্ঘ, নমনীয় এবং সরু নল ব্যবহার করে। যদি কোনও সন্দেহজনক অঞ্চল পাওয়া যায় তবে ডাক্তার টিউব দিয়ে অস্ত্রোপচারের সরঞ্জামগুলি বিশ্লেষণের জন্য টিস্যুর নমুনা (বায়োপসি) নিতে এবং পলিপগুলি অপসারণ করতে পারেন। আজ এপর্যন্তই। আগামীতে বাকি অংশ জানার চেষ্টা করব ইনশাহ আল্লাহ্‌।
(চলবে)
রওশন চৌধুরী, সহ সম্পাদিকা, চেতনায় বিডি ডটকম

Leave A Reply

Your email address will not be published.